অনলাইনে আয়ের সহজ পদ্ধতি

অনলাইন আর্নিং-এর এ পথ, সে পথ...  আপনি যাবেন কোন পথে???


অনলাইন আর্নিং সম্পর্কে সবারই জানার ইচ্ছা প্রচুর, কিন্তু কিভাবে আর্নিং করব,  কোথা থেকে শুরু করব, এ নিয়ে যেন জল্পনা কল্পনার শেষ নেই । তবু অনলাইন আর্নিং বিষয়ে জানার আগ্রহ সবসময়ই কম বেশি সবারই থাকে, শুধু উপযুক্ত নির্দেশনার অভাবে কাজের আগ্রহ হারাচ্ছে নতুন করে আগত ফ্রি লেন্সাররা । তাদের জন্য আমার এ  টিউনটি  একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস মাত্র ।  আমি যে কয়টি সাইট সম্পর্কে এখানে আলোচনা করব তার সম্পর্কে আরো বিস্তারিত টিপস পাবেন এ সাইট এ । এখানে অনলাইন আর্নিং এর বিভিন্ন নির্দেশনা রয়েছে, যা অনেকের কাজে আসতে পারে ।  আসুন এবার মূল কোথায় আসি ।

অনেকের মুখে শুনি অনলাইন এর মাধ্যমে নাকি টাকা ইনকাম করা যায়, কিন্তু কিভাবে করে? তার পদ্ধতি কি? অনলাইন এ অনেক কাজ আছে, কিন্তু আমি কি কাজ করব? কোনো কাজ ই তো ভালোভাবে পারিনা । কোন কাজে সফলতা আসবে, তা বুঝব কি করে? ব্যর্থতার ভয়ে সামনে এগুতে পারছিনা ।  দিধাদন্দ সংকোচ সব বাদ দিয়ে ধরে নিলাম আপনি কোনো কাজ জানেন না । সেক্ষেত্রে কি করবেন? আপনি যেসব কাজ করতে কোনো স্কীল এর প্রয়োজন হয়না, আপনি সেসব কাজ করতে পারেন ।  ই-মেইল মার্কেটিং, আর্টিকেল রাইটিং, ফোরাম পোস্টিং, ডাটা এন্ট্রি এর মত কাজগুলো । কোথায় পাবেন কাজগুলো? কাজগুলো পাওয়ার জন্য আপনাকে কয়েকটি ওয়েব সাইট  এ রেজিস্ট্রেশন করতে হবে । আপনি রেজিস্ট্রেশন করতে পারেন odesk এ সাইনআপ এর মাধ্যমে । রেজিস্ট্রেশন করতে পারেন freelancer এ সাইনআপ এর মাধ্যমে । এছাড়া ছোট ছোট কাজ করতে microworkers এ সাইনআপ করতে পারেন । সাইনআপ এর মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন করলেন, কিন্তু কাজ পাবেন কিভাবে? ধৈর্য ধরে বিষয়টি অনুধাবন করুন, আগেই টাকা তোলার চিন্তা করবেননা, টাকা ইনকাম করার পথটি আগে ক্লিয়ার করুন ।
   

আপনি odesk এ রেজিস্ট্রেশন করলেন । এখন আপনাকে odesk এ একটি রেডিনেস টেস্ট দিতে হবে, যেটা দেয়ার মাধ্যমে আপনি কাজ পাওয়ার প্রাথমিক অনুমতি পাবেন । আপনার যদি কোনো প্রোগ্রাম ভালো জানা থাকে তবে সে বিষয়ে আপনি পরীক্ষা দিতে পারেন তারপর পরীক্ষায় পাশ করলে আপনি ওই বিষয়ে কাজের জন্য এপ্লাই করে কাজ পেতে পারেন । মনে করেন আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন ভালো পারেন, সেক্ষেত্রে আপনাকে এ বিষয়ের  উপর পরীক্ষা দিতে হবে । নয়তো গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজগুলো আপনি পাবেননা । আপনাকে এ পরীক্ষায় পাশ করার জন্য সাইট টি সাহায্য করবে । এভাবে আপনি বিভিন্ন টেস্ট দিতে পারেন । যত বেশি টেস্ট দিবেন আপনার কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা ততই বাড়বে, আপনার প্রোফাইল এর স্টেটাস ও বাড়তে থাকবে ।  কাজ পাওয়ার জন্য নিয়মিত অনলাইন এ থাকুন, বিড করতে থাকুন প্রতিনিয়ত । একসময় আপনি কাজ পাবেন ই, এটা নিশ্চিত ।  কাজ না পেয়ে আপনি হাল ছেড়ে দিলে ভুল করবেন । চেষ্টা করতে থাকুন, আপনাকে সহায়তা করতে অনেক বিজ্ঞ ভাইয়েরা আছেন এখানে ।




আপনি Freelancer এ রেজিস্ট্রেশন করলেন । Freelancer এ কাজ করতে গেলে odesk এর মত প্রাথমিক টেস্ট যেটি দিতে হয় সেটা দিতে হয়না, তাই আপনি এ সাইট এ রেজিষ্ট্রশন করেই কাজের জন্য এপ্লাই করতে পারেন । তবে কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়াতে আপনি আপনার প্রোফাইল কে সম্পূর্ণ করা কিংবা স্কীল টেস্ট দেয়ার মাধ্যমে আপনার দক্ষতা বাড়াতে পারেন । যা আপনার কাজ পাওয়ার ব্যাপারে যথেষ্ট সহায়ক হবে ।




আপনি Microworkers এ রেজিস্ট্রেশন করলেন । Microworkers এ কাজ করতে কোন রকম  টেস্টই দিতে হয়না । এখানে ছোট ছোট ব্যাপক কাজ রয়েছে । ছোট বালুকার কনা বিন্দু বিন্দু জল, গড়ে তলে মহাদেশ সাগর অতল । এ প্রবাদটি সামনে রেখে এ সাইট এ নিশ্চিন্তে কাজ করতে পারেন । ব্যালেন্স জমা হতে হতে যখন বড় একটি এমাউন্ট হবে তখন আপনি তোলার চিন্তা করবেন ।

আপনি উপরের ৩টির কোনটিতেই সাইনআপ করলেননা, তো কি করবেন? ভেঙ্গে পড়বেননা আপনার জন্য আরো পথ আছে । ক্লিক করে টাকা ইনকাম এর জন্য আমি আপনাকে পরামর্শ দিবনা, কেননা এ পথে টাকা আয়ের জন্য আপনি যতটা শ্রম দিবেন, তা যদি উপরের ৩টি সাইট এ দিতে পারেন, তবে আপনি একজন প্রফেশনাল ফ্রিলেন্সার হয়ে যাবেন এটা নিশ্চিত । সৃজনশীল কোনো কাজে সময় দিতে পারলে আপনার শ্রম এবং দক্ষতা ২টি-ই কাজে আসবে । এবার আসুন আরেকটা পথ এর কথা বলি ।

ব্লগিং এর কথা আমরা অনেকেই শুনেছি । কিন্তু খুব একটা গুরুত্ব দেইনা, কিন্তু বিষয়টি সিরিয়াসলি নিতে পারলে আপনি এখান থেকেও প্রতি মাসে একটা বিশাল ইনকাম করতে পারবেন । অনেকে মাঝ পথে গিয়ে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন,  আপনি যতটুকু চেষ্টা করবেন তার ফলাফল অবশ্যই পাবেন । তাই নিরাশ না হয়ে চেষ্টা চালিয়ে যান, সাফল্য ধরা দিবেই । আপনার যদি একটা জিমেইল একাউন্ট থাকে, তবে এখনি শুরু করুন । নতুন করে ডোমেইন হোস্টিং নিয়ে গতানুগতিগ ব্লগিং করা সবার পক্ষে সম্ভব না । তাই আমরা ব্লগার এর মাধ্যমে ব্লগস্পট এর ডায়নামিক সাইট  নিয়ে একটু আলোচনা করব । এজন্য আপনার অবশ্যই জিমেইল একাউন্ট থাকতে হবে । আর না থাকলে জিমেইল এ গিয়ে একটি একাউন্ট তৈরী করুন । তারপর ব্লগার এ যান ...

জিমেইল একাউন্ট এর ইউজার নেইম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন ... তারপর কন্টিনিউ করে new blog এ ক্লিক করুন ...

 
 এখানে একটি উইনডো আসবে, আপনার পছন্দমত একটি নাম দিন (টাইটেল)  এবং  সাইট এর ডোমেইন নেম দিন, একটি টেম্পলেট সিলেক্ট করে create blog এ ক্লিক করুন ...



ব্লগ তৈরী করার পর নিয়মিত পোস্ট করা শুরু করুন । আপনার সাইটটি গুগল সার্চ ইঞ্জিনে এড করুন ... এ জন্য এ লিঙ্কে যান । ব্লগ-এ কি ওয়ার্ড সেট করুন, প্রতিদিন নতুন নতুন কনটেন্ট দিন । দেখবেন আপনার সাইট ভিজিট হওয়া শুরু হয়েছে । আপনি ব্লগে মেনু দিন, প্রতিটি মেনুতে ৪/৫টি  আর্টিকেল রাখুন। এসব ক্ষেত্রে সাহায্যের প্রয়োজন হলে আমার পরামর্শ নিতে পারেন । আমার চেয়েও বিজ্ঞ ভাইয়েরা আছেন, তাদেরও পরামর্শ নিতে পারেন ।

আপনার সাইট টির কন্টেন্ট কোথায় কোথায় রাখবেন সেজন্য  Layout অপশন এ যান । এখানে থেকে নিজের পছন্দ মত সাইট এর ডান বাম এর সকল Gedget পরিবর্তন করতে পারবেন ।

  আপনার সাইট এ মেনু দিতে চাইলে Pages অপশন থেকে মেনু এড করতে পারবেন ।


সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করতে পারেন আপনার সাইট এর ভিজিটর বাড়ানোর জন্য, তবে প্রথমেই ইউনিক আর্টিকেল এর উপর নজর দিন । মনে রাখবেন অনেক সাইট আছে যারা শুধু কন্টেন্ট এর জন্যই জনপ্রিয়, যাদের সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করতেই হয়নি । দেশ বিদেশের বিভিন্ন ফোরামে আপনার সাইট এর রিভিউ দিন । দিন দিন আপনার সাইট জনপ্রিয় হতে থাকবে । এ পর্যায়ে আপনি এডসেন্স এর জন্য এপ্লাই করুন । ব্লগ এর ভিতরে আর্নিং অপশন এ গেলে get started এ ক্লিক করে এডসেন্সের জন্য এপ্লাই করতে পারবেন ।

 আপনার সাইট এর ভালো একটা অবস্থা দেখে এডসেন্সে টিম আপনাকে এডসেন্স দিয়েও দিতে পারে । এডসেন্সে পেয়ে গেলে ব্যাস, আপনার কাজ শেষ । এডসেন্স এ এপ্লাই করতে বললাম একটু দেরিতে, কেননা আপনার সাইট কে একটা পর্যায়ে না এনে এডসেন্স এর জন্য এপ্লাই করে পাবেননা । আর একবার এডসেন্স না পেলে, ডিস্এপ্রোভ হলে পরবর্তিতে আর পাওয়া যায়না, অনেক কষ্টসাধ্য ব্যাপার।  যাইহোক, এডসেন্স একাউন্ট পাওয়ার পর আপনার এডসেন্স একাউন্টে লগইন করে এড কোড  নিয়ে সাইট এ বসান। ব্লগের ভিতর থেকেও add a gadget এ গিয়ে এডসেন্স এড করে আপনি আপনার সাইট এ এড দিতে পারেন । এড গুলো এভাবে আপনার সাইট এ সেট করতে পারেন ।


এড সেট করার পর আগের মত ভিজিটর বাড়াতে কাজ গুলো আবার করুন, আস্তে আস্তে দেখবেন আপনার আর্নিংও হচ্ছে। প্রথম পর্যায়ে আর্নিং কম আসলেও সেটি আস্তে আস্তে বাড়তে থাকবে । বিভিন্ন ফোরামে আবার আপনার সাইট এর রিভিউ দিন । কী ওয়ার্ড রিসার্চ করে বেস্ট কিওয়ার্ড আপনার সাইট-এ বসিয়ে সাইট এর ভিজিটর বাড়াতে পারেন । কি ওয়ার্ড এর সাথে রিলেটেড কন্টেন্ট পোস্ট করুন । এডসেন্স পাওয়ার আগে যে কাজ গুলো করেছেন ভিজিটর পাওয়ার জন্য, এডসেন্স পাওয়ার পরও তাই করুন । এভাবে নিয়মিত কাজ করার মাধ্যমে আপনি পর্যায়ক্রমে ভিজিটর পেতে থাকবেন এবং আপনার ইনকামও বাড়তে থাকবে । এসব ক্ষেত্রে সমস্যা হলে আমার হেল্প নিতে পারেন ।  আপনার জন্য শুভ কামনা । চেষ্টা করুন, আপনি হয়ত ব্লগ এ ই সফলতা পাবেন ।
আরেকটি কথা, আপনি যদি ব্লগ-এও সুবিধা করতে না পারেন তবে মন খারাপ করবেননা । আপনার জন্য আরো টিপস আছে, তবে সেটি আজ আর নয় আরেকদিন আলোচনা করব । সবাইকে ধন্যবাদ ।

আমার ফেসবুক ।    আমার ব্লগ ।    আমার ফেসবুক পেজ ।
 
সবার জন্য শুভ কামনা।

Followers